শিরোনাম :
উপজেলা চেয়ারম্যান রোমা আক্তারের প্রথম অফিস  আমারে বদলী করতে মন্ত্রী লাগব,এমপি দিয়ে হবে না, বললেন মেডিকেল অফিসার মোহায়মিনুল। নাসিরনগরে যৌতুক না পেয়ে স্ত্রীকে পিটিয়ে মারার অভিযোগ দেবর ও শ্বশুর আটক । কুন্ডা ইউনিয়নের ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে চেয়ারম্যান সহ ১২ সদস্যের অনাস্থা নাসিরনগর সদর পশ্চিমপাড়া প্রবাসীর স্ত্রীর লাশ উদ্ধার। প্রদীপ কুমার রায় উপজেলা পরিষদ নিবার্চন থেকে সরে দাঁড়ালেন। ইভটিজিংয়ের প্রতিবাদ করায় দায়ে প্রাণ গেল এক যুবকের । নাসিরনগরে এন আর ভবনে কৃষকলীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল । নাসিরনগরে সেপটি ট্যাংকি থেকে তিনজনের মরদেহ উদ্ধার।  ধান কাটা নিয়ে সংঘর্ষে সরাইল একজন নিহত
রবিবার, ২৩ জুন ২০২৪, ০৭:০২ পূর্বাহ্ন

কুন্ডা ইউনিয়নের ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে চেয়ারম্যান সহ ১২ সদস্যের অনাস্থা

প্রতিনিধির নাম / ৬৮ বার
আপডেট : শনিবার, ২৫ মে, ২০২৪

মিহির দেব ,ব্রাহ্মণবাড়িয়া ঃ ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নাসিরনগর উপজেলার কুন্ডা ইউনিয়ন পরিষদের ৩ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য হীরন মোল্লার বিরুদ্ধে অনাস্থা কার্যকরের দাবি জানিয়েছেন ইউপি চেয়ারম্যান সহ পরিষদের ১২ সদস্য,নাসিরনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর লিখিত অভিযোগ করেছেন।

লিখিত অভিযোগে উল্লেখ করা হয়, হিরন মোল্লা একজন সন্ত্রাসী ও সক্রিয় চোর, ডাকাত দলের সদস্য। তার বিরুদ্ধে থানায় একাধিক চুরি -ডাকাতির মামলা রয়েছে।
ইউপি সদস্য নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে সে বিভিন্ন সময় নির্বাচিত চেয়ারম্যান ও সদস্যদের সাথে অসদাচরন করে আসছেন।

ঘটনার দিন বৃহস্পতিবার ২৩ মে ২০২৪ দুপুরে পরিষদের সভা শুরুর পর উপস্থিত চেয়ারম্যান ও ইউপি সদস্যদের সম্মুখে কুন্ডা ইউনিয়নের ৭,৮,৯ নং ওয়ার্ডের সংরক্ষিত ইউপি সদস্য জাকিয়া খাতুনের সাথে বাক বিতন্ডা শুরু করে। এ সময় অন্যরা তাকে থামাতে চাইলে, সে আরো ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে। এক পর্যায়ে সবার সম্মুখে সংরক্ষিত ইউপি সদস্য জাকিয়া খাতুন কে হত্যার উদ্দ্যশ্যে মারধর করে গুরুতর জখম করে।

প্রাথমিক চিকিৎসা জন্য তাকে নাসিরনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।
পরবর্তীতে এই ঘটনার রেশ ধরে মো. হিরন মোল্লা কুন্ডা ইউপির চেয়ারম্যান নাসির উদ্দিন ভূঁইয়া কে হত্যার হুমকি প্রদান করে পরিষদ ত্যাগ করেন।

এ ঘটনার প্রতিবাদস্বরূপ ইউপি সদস্য হিরন মোল্লা’র বিরুদ্ধে অনাস্থা আনাসহ তার অপসারণ দাবি করে কুন্ডা ইউপি চেয়ারম্যান এডঃ মোঃ নাছির উদ্দিন ভূঁইয়া সহ সংরক্ষিত আসনের ইউপি সদস্য মোছা. তাহেরা বেগম, মোছা. তাছলিমা বেগম,জাকিয়া খাতুন, জজ মিয়া,শাহাজাহান মিয়া,সুশান্ত দাশ,কাইযূম মিয়া,মো. জিল্লুর রহমান,নবী হোসেন,আজিজুর রহমান ভূঁইয়া ও মোঃজামাল মিয়া।

অভিযুক্ত ইউপি সদস্য হিরন মোল্লার সাথে বেশ কয়েকবার মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলেও তিনি ফোন ধরেনি।


এ জাতীয় আরো সংবাদ